• চাঁদপুর, বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:৩৭ অপরাহ্ন
  • বাংলা বাংলা English English
ব্রেকিং নিউজ

জাতীয় ক্রিকেট দলে খেলার স্বপ্ন দেখেন হাজীগঞ্জের তাসকিন

পপুলার বিডিনিউজ রিপোর্ট / ৭৭৫ বার পঠিত
আপডেট : মঙ্গলবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২১

প্রথম বাংলাদেশী ওমান জাতীয় দলে ডাক পান ক্রিকেটার তাসকিন আহাম্মেদ রিয়াদ। হাজীগঞ্জে বেড়ে উঠা এই ক্রিকেটার চান ওমান, কাতার বা নিজ দেশের জাতীয় দলে খেলার সুযোগ। ওমান জাতীয় দলের হয়ে খেলার সুযোগ হয়েছিল। ইনজুরি তাকে খেলতে দেয়নি গেল টি-টোয়ান্টি বিশ্বকাপ। তবে হাল ছাড়েনি। এখন ফিটনেস নিয়ে সন্তুষ্ট, ফিরতে চান ২২ গজের ক্রীজে। করতে চান দুর্দান্ত গতির বল।

ছোটবেলা থেকেই ক্রিকেট নিয়ে তাসকিন আহম্মেদ রিয়াদের স্বপ্ন। ক্রিকেটের যাত্রা শুরু হয় আবাহনী সিসিএস থেকে। সে ডানহাতি ফাস্ট বোলার। মাঝে মাঝে ব্যাট হাতেও জ্বলে উঠে ক্রিকেট মাঠে। জন্মস্থন চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলায়। এই উপজেলা থেকে প্রথম কোন ক্রিকেটার জাতীয় দলের হয়ে খেলার স্বপ্ন দেখেন। তাও আবার দেশে বা ভীনদেশের হয়ে।

তাসকিন আহাম্মেদ রিয়াদ হাজীগঞ্জ উপজেলার ৩নং কালচোঁ উত্তর ইউনিয়নের চিলাচোঁ মজুমদার বাড়ীর এমরান হোসেন মজুমদারের বড় সন্তান। তার বাবা দীর্ঘ বছর ধরে ব্যবসা করার সুবাধে পুরো পরিবার পাড়ি দেয় ওমানে। তবে তাসকিন আহম্মেদ রিয়াদ বর্তমানে কাতারে রয়েছেন। খেলছেন সেখানের ঘরোয়া ক্রিকেট।

তাসকিন আহম্মেদ রিয়াদ জানান, তিনি এখন পুরোপুরি ফিট। শারিরিকভাবে সুস্থ। পুনোরায় বল হাতে নামছেন মাঠে।

২০১৫ সালে ওমান ক্রিকেটের উদ্দেশ্যে পাড়ি দেয় রিয়াদ। সেখানে যাত্রা শুরু হয় ব্যাংক দোফার টিমের হয়ে সেকেন্ড ডিভিশন খেলার সুযোগ। ব্যাংক দোফার টিমের হয়ে তৃতীয় ম্যাচে প্রতিপক্ষের ৫ উইকেট নিয়ে তাক লাগিয়ে দেন ওমান ক্রিকেট বোর্ডের। তারপর ওমান প্রিমিয়ার লীগে সুয়োগ লুপে নেয়। ২০১৫-২০১৬ সালে খুব ভালো ক্রিকেট খেলে তাসকিন আহম্মেদ রিয়াদের। বাংলাদেলে বংশদুত ওমান ক্রিকেটে প্রথম সুযোগ হয়। ওমান জাতীয় দলের হয়ে খেলতে হলে চার বছরের স্থায়ীত্বকাল প্রয়োজন। দুই বছরের মধ্যে ওমান এ টিমের হয়ে সেখানে ঘরোয়া ম্যাচ খেলতে গিয়ে ইঞ্জুরি হয়ে পড়ে।

ইন্ডিয়ান একটি হসপিটালে অপারেশন শেষে ছুটিতে আসে মাতৃভূমিতে। দুর্ভাগ্য তার পিছু ছাড়েনি। গ্রামে ব্যাডমিন্টন খেলতে গিয়ে আবার ইঞ্জিুরিয়ে পড়ে। তারপর ক্রিকেটের ছোট ক্যারিয়ারে বড় স্বপ্নটা বিলিন হয়ে যায়। খেলা হয়নি আর ওমানের হয়ে গেলি টি-টোয়ান্টি বিশ্বকাপ।
সরজমিনে এই ক্রিকেটারের গ্রামের বাড়ীতে গিয়ে কথা হয় পরিবারের সাথে। তার বাবা এমরান হোসেন বড় ছেলে তাসকিনকে নিয়ে স্বপ্ন দেখেন। তিনি বলেন, ওমান আমার খুব পরিচিত জায়গা। সেখানে ২২ বছর কেটেছে। পুরো পরিবার নিয়ে থাকার সুবাধে তাসকিন সেখানে জাতীয় দলে ডাক পান। ইনজুরীর কারণে পিছিয়ে পড়েছে। তার বিশ^াস তাসকিন আহাম্মেদ রিয়াদ ওমান বা বাংলাদেশের জাতীয় দলে ক্রিকেট খেলবে।

তিনি আরো জানান, তার ছোট ছেলে রাশেদ মজুমদারকে আগামী বছর ঢাকা বিকেএসপিতে ভর্তি করানো হবে। তারও স্বপ্ন ক্রিকেট খেলা।

আপনার মতামত লিখুন


এ জাতীয় আরো খবর..

আর্কাইভ

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১